Blood King Or Lover |Part-05

In the nearest jungle,

মায়া গাড়ি থামায়, আর, দিয়া আশা, সিতারা নেমে যায়।

-তোরা দাড়া, গাড়ি পার্ক করে আসছি আমি। (মায়া)

মায়া গাড়ি পার্ক করে গাড়ি থেকে নেমে সামনে তাকায় আর রাগ যেন সপ্তম আকাশে উঠে যায়।
সামনে রিয়নও গাড়ি পার্ক করে নেমেছে মাত্র, আর মায়ার দিকে তাকায়। সেখানেই রিয়নের পুরো দুনিয়া যেন থমকে গেছে।
রিয়নের মনে হচ্ছে তার সামনে একটা কিউট বারবি ডল দাড়িয়ে আছে। নিজেকে সামলে নিয়ে রিয়ন এগিয়ে যায়।মায়া রিয়নকে ক্রস করে যাবে ঠিক তখন রিয়ন বলে উঠে,,,,

-এতোই ক্রাশড? যে আমার পেছন পেছন এখানেও চলে এসেছ? অবশ্য হওয়ারই কথা, কজ আম ডেম হ্যান্ডসাম (রিয়ন)

মায়া কিছু না বলে রিয়নকে ইগনোর করে চলে যায়। আর মনে মনে বলে,,,,,

“‘”‘ক্রাশ না ছাই, লাল চুলওয়ালা সাদা ভাল্লুক কোথাকার। আশা ঠিকই বলেছিল, ভালোই হলো তোমাকে আজকে আচ্ছা করে মজা বুঝাব।”‘”

জংগলের মাঝে একটা মাঠ আছে। সেই মাঠে কয়েকটা গাছে পার্টি লাইট জলছে, যার জন্য কিছুটা আলোকিত। মাঠকে ঘিরে কয়েকটা বক্স রাখা হয়েছে। আর খুব জোড়ে জোরে গান বাজানো হচ্ছে।

-ইয়ার, ফার্স্ট টাইম কোন পার্টিতে এসেছি, তাও তোদের কথায়। আমার মাথা যদি ফাটে না এই শব্দে তোদের খবর আছে (মায়া)
-মানুষের কান ফাটে আর তোর মাথা?(দিয়া)
-অই,তুই না সারাক্ষণ বই নিয়ে থাকিস? জানিস না? কান আর মাথা রিলেটেড, কান ব্যথা করলে মাথা ব্যথা করে। (মায়া)
-স্টপ ইট, ইয়ার। এখানে মাস্তি করতে এসেছি, ঝগড়া বা পড়ালেখা করতে না। (আশা)
-এই, চল, অইদিকটায় কোল্ড ড্রিংক আছে (সিতারা)

চারজনই গিয়ে একটা করে কোল্ড ড্রিংক নেয়। হঠাৎ কোথাথেকে একটা ছেলে এসে মায়ার কাধে অস্বাভাবিক ভাবে হাত রাখে। মায়া ঘুরে তাকায় আর কয়েকটা ছেলেকে দেখতে পায়।,,,

-হেই, লুক, কলেজের সবথেকে পপুলার গার্ল আজকে পার্টিতে এসেছে। মায়া, ইউ আর লুকিং সো হট টুডে।

ছেলেটি হলো জনি, নামকরা প্লে & বেড বয়। এটা নতুন নয় যে, জনি মায়াকে ডিস্টার্ব করে না।

-রেলি? (গ্লাসটা রেখে) আম লুকিং হট? তাহলে এই হটনেসে হাত লিগেছিস, একটু জ্বলতে তো হয়ই, তাই না?

বলেই মায়া জনির হাত নিয়ে পাশের ফায়ার প্লেসের একটা জ্বলন্ত কাঠে ছুইয়ে দেয়।

-আআয়ায়ায়ায়ায়ায়া,,,,,

জনি ছোট আর্তনাদ করে উঠে। আর হাতে ফু দিতে থাকে। এসব ঘটনা আর কথা রিয়ন ঠিকই খেয়াল করে। রিয়ন মায়ার অপসিট সাইটে দাড়িয়ে ছিল স্টিভ, স্মিথ আর রেয়হানের সাথে। রিয়ন রেগে যায়, যখন জনি মায়ার গায়ে হাত রাখে।তবুও নিজেকে শান্ত করে দেখে যায়।

-এর জন্য তোমাকে পে করতে হবে, মায়া। কাজটা ঠিক করলে না, তুমি।

বলেই জনি চলে যায়।

-আ’ম ওয়েটিং ফর পেয়িং,

বলেই মায়া হেসে দেয়।

-মায়া,জনি যদি ঠিকই উল্টাপাল্টা কিছু করে, জনি যে ডেঞ্জারাস তা তো জানিসই। (আশা)
-চিল,কিছু হবে না। (মায়া)
-তোরা থাক,আমার ডান্স করতে ইচ্ছা করছে, কেউ যাবি?(সিতারা)
-আমি যাব, (আশা)
-আমিও যাব,মায়া চল? (দিয়া)
-না,আমি এখানেই ঠিক আছি। (মায়া)

অপরদিকে,

-ইয়ার,ফার্স্ট টাইম হিউম্যান এর সাথে পার্টি, আর আমরা চার ভ্যাম্পায়ার (স্টিভ)
-হুম,রিয়ন,, কোন দিকে মন তোর?(রেয়হান)
-দেখছি, আর কি। (রিয়ন)
-হেই,লুক, অই মেয়েগুলো না?(স্টিভ)
-হুম, বাট ওরা তো পার্টিতে আসে না। (রেয়হান)
-হেই, লুক, একটা নিউ এড হয়েছে। (স্টিভ)
-ইয়ার, স্টিভ, লিভ হার। (রেয়হান)
-কেন?(স্মিথ)
-কজ আই হেভ ফিলিংস ফর হার (রেয়হান মাথায় হাত দিয়ে বলে)
-ওহোওঅঅঅঅঅঅ(স্মিথ,রিয়ন আর স্টিভ একসাথে বলে)
-তা, নাম কি?(রিয়ন)
-আব,,সিতারা (রেয়হান)
-ওকে, ,,, চল দেখি ডান্স ফ্লোরে, কথা বলি ভাবির সাথে (স্মিথ)
-এই না না,,, (রেয়হান)
স্মিথ আর স্টিভ রেয়হানের হাত ধরে টানতে টানতে বলে,,,
-আমরা তোর নানা, তো আমাদের নাতি বঊয়ের সাথে পরিচয় করা

বলে টানতে টানতে নিয়ে যায়। রিয়ন সেখানে দাঁড়িয়ে তাদের কান্ডকারখানা দেখে হাসতে থাকে।
মায়ার দিকে তাকাতে মুখের হাসি উধাও হয়ে যায়। কারণ মায়া সেখানে নেই। রিয়ন আশেপাশে খুজতে থাকে মায়াকে।
হঠাৎ মায়াকে দিয়ার সাথে দেখে।

-ইয়ার,প্লিজ মায়া, চল না(মায়ার হাত ধরে টানতে টানতে বলে দিয়া)
-আই সেইড নো, (মায়া হাত ছাড়িয়ে নেয়)
-ওকে,,,

দিয়া চলে যায়। আর মায়া নিজের জায়গায় ফিরে যায়। রিয়নও ধীরে ধীরে মায়ার পাশে গিয়ে একটা বিয়ারের বোতল নেয়।

-হেই, মিস ঝগড়ি(রিয়ন)

মায়া এমন কথা শুনে রাগী চোখে রিয়নের দিকে তাকায়।

-আচ্ছা, সমস্যা কি তোমার? আমার পেছন পেছন ঘুরছ কেন? হা? (মায়া)
-এতো ভাউ খাওয়ার কিছু নেই, অতটাও সুন্দর নও তুমি, তাই ভেবো না লাইন মারার ট্রাই করছি। এমনি কথা বলতে এসেছিলাম (রিয়ন)
-আমার কোন ইচ্ছা নেই তোমার সাথে কথা বলার(মায়া)
-ওহ, আচ্ছা? ইচ্ছা নেই? তাহলে কথার উত্তর দিচ্ছ কেন?(রিয়ন)
-অসহ্য,তুমি যাবে নাকি আমি যাব?(মায়া)
-ওকে, যাচ্ছি।

বলেই রিয়ন মায়ার গালে একটা কিস করে চলে যায়। মায়া গ্লাসটা মুখের সামনে নিয়েছিল। রিয়নের এই কাজে মায়া শকড আর ওইভাবেই চোখ বড় বড় করে স্ট্যাচু হয়ে থাকে। রিয়ন আবার ফিরে এসে মায়ার ধরে রাখা গ্লাসটাতে এক সিপ কোল্ড ড্রিংক খেয়ে বলে,,,,

-তোমার কথার থেকে শতগুণ মিষ্টি , তোমার কোল্ড ড্রিংকটা।

এই কথা বলতেই মায়া আবার রিয়নের দিকে তাকায়, আর রিয়ন চোখ মেরে চলে যায়।

-ইউ,,,তোমাকে আমি,,,,,স্টুপিড (মায়া রেগে গিয়ে বলে)

রিয়ন কিছুটা সামনে এগিয়ে যায় হাসতে হাসতে। ঠোঁটে লেগে থাকা ড্রিংক টুকু হাতে নিয়ে স্মেল নিতেই রিয়ন থমকে দাড়ায়।
রিয়ন পেছন ঘুরে দেখে মায়া তার কোল্ড ড্রিংক সম্পূর্ণ শেষ করে ফেলেছে।

এইদিকে কোল্ড ড্রিংক শেষ করতেই মায়ার মাথা কেমন ঘুরাচ্ছে। চারদিক ঝাপসা লাগছে। মায়ার মনে হচ্ছে মায়ার নেশা করেছে।

-এটা কি ছিল? আমার এমন লাগছে কেন?(মায়া)

রিয়ন তাড়াতাড়ি করে মায়ার পাশে আসে। পাশ থেকে লেবু জুস নিয়ে বলে,,,,

-হেই মায়া, এটা খাও, ফার্স্ট (রিয়ন)

মায়া রিয়নের দিকে তাকায়।

-ইউ? আবার এসেছ? তোমাকে তো আমি (আংগুল তুলে রিয়নের দিকে তাক করে) আমি, আমি,,,

মায়া তার মাথায় হালকা বাড়ি মারে। মায়ার নেশাটা চড়ে বসেছে।

-মায়া, লিসেন টু মি, তোমার ড্রিংকে,,,, (রিয়নকে মাঝ কথায় থামিয়ে)
-এই, এই, রিয়ন না টিং টিং টিয়ন, শাট আপ, ও, আমার কাজে কথা বলতে আসো কেন?(নেশার কন্ঠে)
-মায়া,,,,

রিয়নকে ধাক্কা দিয়ে মায়া দিয়াদের সাথে গিয়ে নাচতে থাকে। রিয়ন কিছুই বুঝতে পারছে না।
তাই যে মায়াকে ড্রিংক দিয়েছিল সেই ছেলেকে প্রশ্ন করে।

-হেই, লিসেন। এখানে যে মেয়েটা ছিল ব্লাক ড্রেসে,,
-শি ইজ মায়া,, (ছেলে)
-আই নো দ্যাট, ওর ড্রিংকে কি মিশিয়েছিলে?(রিয়ন)
-সরি৷ আমি উনাকে সফট কোল্ড ড্রিংক দিয়েছিলাম। (ছেলে)
-আর কেউ এসেছিল? যখন মায়া ছিল না?(রিয়ন)
-অনেকেই তো এসেছে। (ছেলে)
-ওকে,,,,

রিয়ন উল্টো দিকে ঘুরে দেখে মায়া নেই। আশেপাশে ভালো মতো তাকায় কিন্তু পায় না। তাই রিয়ন মাঠ থেকে বেরিয়ে জংগলের দিকে যায়।

চলবে,,,,,,,,,

🔥7 view

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *